মোট ৭৮ জন হজযাত্রীকে রেখে সৌদি এয়ারলাইনের নির্ধারিত দুটি ফ্লাইট চলে গেছে। আজ শুক্রবার সন্ধ্যায় হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এ ঘটনা ঘটে। নির্ধারিত ফ্লাইটগুলোর উড্ডয়নের সময় ছিল সন্ধ্যা ছয়টা ও সোয়া সাতটায়।

কেন এমন ঘটনা ঘটল—এ প্রশ্নের জবাবে হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের পরিচালক গ্রুপ ক্যাপ্টেন কাজী ইকবাল করিম প্রথম আলোকে বলেন, ‘এর কারণ আমরা জানি না। সৌদি এয়ারলাইনকে জিজ্ঞেস করুন। তবে রেখে যাওয়া যাত্রীদের থাকা ও খাওয়ার ব্যবস্থা করছে বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ। আজ রাতে হজ ক্যাম্পে তাঁদের থাকার ব্যবস্থা করা হবে।’

আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের (এপিবিএন) সূত্রে জানা গেছে, সন্ধ্যা ছয়টার ফ্লাইটের হজযাত্রীরা বিকেল চারটার মধ্যেই বিমানবন্দরে পৌঁছে গিয়েছিলেন। কিন্তু বিমানের ভেতর লাগেজ বা ব্যাগপত্র পরিবহন করবেন কি না—এ নিয়ে তাঁরা সিদ্ধান্তহীনতায় ভুগছিলেন।

এ ব্যাপারে বিমানবন্দরে কর্মরত এপিবিএনের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার জিয়াউল হক প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমরা যত দূর জানতে পেরেছি, হজযাত্রীদের লাগেজ নিয়ে তাঁদের নিজেদের সিদ্ধান্তহীনতা ও সংশ্লিষ্ট ট্রাভেল এজেন্টদের দায়িত্বে অবহেলার কারণে এ ঘটনা ঘটে। সৌদি এয়ারলাইনের সঙ্গে কথা হয়েছে। তাঁরা বলেছে, যদি এই হজযাত্রীরা জনপ্রতি ৩০০ ডলার করে জরিমানা দেন, তবে পরবর্তী সময়ে তাঁদের যাওয়ার ব্যবস্থা করা হবে।’ তিনি বলেন, সমস্যার শুরুতে তাঁদের সঙ্গে হজযাত্রীরা যোগাযোগ করেননি। ফ্লাইট ছেড়ে দেওয়ার পর যোগাযোগ করেন। জিয়াউল হক বলেন, ‘সময়মতো জানতে পারলে ব্যবস্থা নেওয়া যেত।’

এ ব্যাপারে সৌদি এয়ারলাইনের সহকারী স্টেশন ম্যানেজার মো. শফিকের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে প্রথম আলোকে তিনি বলেন, ‘তাঁরা দেরি করে এসেছিলেন।’ জনপ্রতি ৩০০ ডলার জরিমানার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি এ ব্যাপারে কিছু জানাতে পারেননি।e5fff00fe70989e37f705b5ffd6c5486-Untitled-1